হিব্রু ভাষা

হিব্রু ভাষা (עבריתইভ্‌রিত্ (ইৱ্'রিৎ)) হল ইসরায়েলের রাষ্ট্র ভাষা, যার বিশ্বে ৯০ লাখ ভাষাভাষীদের মধ্যে ৫০ লাখ ভাষাভাষীরা ইসরায়েলে[৭] হিব্রু আফ্রো-এশীয় ভাষা-পরিবারের সেমিটীয় শাখার একটি সদস্য ভাষা। এটি হিব্রু বাইবেল, বা ওল্ড টেস্টামেন্ট তথা তোরাহ-র ভাষা।

হিব্রু
עברית, Ivrit
Temple Scroll
মন্দির স্ক্রোলের অংশ, কুমরানের মৃত সাগরে আবিষ্কৃত পুস্তকসমূহের মধ্যে দীর্ঘতম একটি পুস্তকের অংশ
উচ্চারণ[ivˈʁit][(ʔ)ivˈɾit][১]
দেশোদ্ভবইসরায়েল
অঞ্চলইসরায়েলের ভূমি
জাতিতত্ত্বইসরাইলি; ইহুদি এবং Samaritans
বিলুপ্তমিশনেক হিব্রু ভায়া ৫তম শতাব্দীর মধ্যবর্তীতে বিলুপ্ত হয়ে যাওয়া একটি কথ্য ভাষা, যা ইহুদি ধর্মের হিব্রু বাইবেলে একটি লিটার্জিকালল ভাষা হিসাবে বেঁচে আছে[২][৩]
পুনর্জাগরণ১৯শ-শতাব্দীর শেষের দিকে পুনরম্নজ্জীবিত। ৯ মিলিয়ন আধুনিক হিব্রু ভাষাভাষী যার মধ্যে ৫ মিলিয়ন স্থানীয় বক্তা (২০১৭)[৪]
আফ্রো-এশীয়
  • সেমিটিক
    • মধ্য সেমিটিক
      • উত্তর-পশ্চিম সেমিটিক
        • কানানীয়
          • হিব্রু
পূর্বসূরীরা
বাইবেলীয় হিব্রু
  • মিশনেক হিব্রু
    • মধ্যযুগীয় হিব্রু
প্রমিত রূপ
আধুনিক হিব্রু
হিব্রু বর্ণমালা
Hebrew Braille
Paleo-Hebrew alphabet (Archaic Biblical Hebrew)
Imperial Aramaic script (Late Biblical Hebrew)
স্বাক্ষরিত রূপ
Signed Hebrew (oral Hebrew accompanied by sign)[৫]
সরকারি অবস্থা
সরকারি ভাষা
 ইসরায়েল (as Modern Hebrew)
নিয়ন্ত্রক সংস্থাহিব্রু ভাষার অ্যাকাডেমি
האקדמיה ללשון העברית (HaAkademia LaLashon HaʿIvrit)
ভাষা কোডসমূহ
আইএসও ৬৩৯-১he
আইএসও ৬৩৯-২heb
আইএসও ৬৩৯-৩বিভিন্ন প্রকার:
heb – আধুনিক হিব্রু
hbo – ধ্রুপদী হিব্রু (লিটার্জিকাল)
smp – সামারিটান হিব্রু (লিটার্জিকাল)
obm – মোয়াবীয় ভাষা (বিলুপ্ত)
xdm – ইদোমীয় (বিলুপ্ত)
গ্লোটোলগhebr1246[৬]
লিঙ্গুয়াস্ফেরা12-AAB-a
Hebrew Language in the State of Israel and Area A, B and C
হিব্রু ভাষাভাষী বিশ্বঃ:
  অঞ্চলসমূহ যেখানে হিব্রু সংখ্যাগরিষ্ঠ ভাষা
  অঞ্চলসমূহ যেখানে হিব্রু ভাষা প্রায় ৫০% জনসংখ্যার কথ্য ভাষা
  অঞ্চলসমূহ যেখানে হিব্রু একটি উল্লেখযোগ্য সংখ্যালঘু ভাষা

ইতিহাস

হিব্রু ভাষার ইতিহাস বৈচিত্র্যময়। ২০০ খ্রিস্টাব্দের দিকে মুখের ভাষা হিসেবে এটি বিলুপ্ত হয়ে যায়। কিন্তু লিখিত ভাষা হিসেবে এটি আরও বহু শতক টিকে থাকে। এটি ধর্ম, আইন, ব্যবসা, দর্শন ও চিকিৎসা বিষয়ক বহু বই লিখতে ব্যবহৃত হত। ১৯শ শতকের শেষে ও বিংশ শতাব্দীর শুরুতে কথ্য ভাষা হিসেবে এটির পুনর্জন্ম হয়। বিশ্বের বিভিন্ন অঞ্চল থেকে (প্রধানত রাশিয়া থেকে) বর্তমান ইসরায়েলে (তৎকালীন ব্রিটিশ প্যালেস্টাইনে) ইহুদিরা তাদের নিজস্ব বিভিন্ন মাতৃভাষা যেমন আরবি, ইডিশ, রুশ, ইত্যাদির পরিবর্তে আধুনিক হিব্রু ভাষায় কথা বলা শুরু করেন। ১৯২২ সালে হিব্রু ব্রিটিশ প্যালেস্টাইনের সরকারি ভাষার মর্যাদা পায়।

ইসরায়েলে প্রায় ৫০ লক্ষের বেশী লোক হিব্রু ভাষায় কথা বলেন। এছাড়া বিশ্বের বিভিন্ন ইহুদি সম্প্রদায়ের প্রায় কয়েক লক্ষ লোক হিব্রুতে কথা বলেন। বর্তমানে আরবির পাশাপাশি হিব্রু ইসরায়েলের সরকারি ভাষা। আরব সেক্টরগুলি বাদে ইসরায়েলের সমস্ত সরকারি ও বেসরকারি কাজে হিব্রু ব্যবহার করা হয়। সরকারি স্কুলগুলিতে হয় হিব্রু বা আরবি ভাষায় শিক্ষাদান করা হয়, তবে আরবি স্কুলগুলিতে হিব্রু দশম শ্রেণী পর্যন্ত পড়া বাধ্যতামূলক। বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়েও হিব্রু ভাষাই শিক্ষাদানের মাধ্যম। ইসরায়েলের সংবাদপত্র, বই, রেডিও ও টেলিভিশনের প্রধান ভাষা হিব্রু।

পুনর্জন্ম

আধুনিক কথ্য ভাষা হিসেবে হিব্রুর পুনঃপ্রতিষ্ঠার নেপথ্যে ছিলেন এলিয়েজের বেন ইয়েহুদা নামের এক রুশ-বংশোদ্ভূত ইহুদি। তিনি ১৮৮১ সালে হিব্রু ভাষা পুনঃপ্রতিষ্ঠার পরিকল্পনা নিয়ে তৎকালীন উসমানীয় সাম্রাজ্যের অধীন ব্রিটিশ প্যালেস্টাইনে আসেন। বেন ইয়েহুদা চাইতেন প্যালেস্টাইনে বসবাসরত ইহুদিরা কেবলই হিব্রু ভাষায় কথা বলুক। তিনি হিব্রুকে ঘরে ও বাইরে সমাজের সব ধরনের কাজের চাহিদা মেটাতে সক্ষম একটি ভাষা হিসেবে প্রচলন করার পরিকল্পনা নেন। এজন্য তিনি ইহুদি শিশুরা যাতে ছোটবেলা থেকেই হিব্রুতে শিক্ষা পায়, তার ব্যবস্থা করেন। এভাবে ধীরে ধীরে হিব্রু আবার একটি জীবিত ভাষায় পরিণত হয়। আজকে হিব্রু ইসরায়েলের সরকারি ভাষা।

জনপ্রিয় গ্রন্থ ও রচনা

আরো দেখুন

তথ্যসূত্র

  1. Sephardi [ʕivˈɾit]; Iraqi [ʕibˈriːθ]; Yemenite [ʕivˈriːθ]; Ashkenazi realization [iv'ʀis] or [iv'ris] strict pronunciation [ʔiv'ris] or [ʔiv'ʀis]; স্ট্যান্ডার্ড ইসরাইলি ivˈʁit]
  2. H. S. Nyberg 1952. Hebreisk Grammatik. s. 2. Reprinted in Sweden by Universitetstryckeriet, Uppsala 2006.
  3. এথ্‌নোলগে আধুনিক হিব্রু (১৯তম সংস্করণ, ২০১৬)
    এথ্‌নোলগে ধ্রুপদী হিব্রু (লিটার্জিকাল) (১৯তম সংস্করণ, ২০১৬)
    এথ্‌নোলগে সামারিটান হিব্রু (লিটার্জিকাল) (১৯তম সংস্করণ, ২০১৬)
    এথ্‌নোলগে মোয়াবীয় ভাষা (বিলুপ্ত) (১৯তম সংস্করণ, ২০১৬)
    এথ্‌নোলগে ইদোমীয় (বিলুপ্ত) (১৯তম সংস্করণ, ২০১৬)
  4. https://www.ethnologue.com/language/heb
  5. Meir, Irit; Sandler, Wendy (২০১৩)। A Language in Space: The Story of Israeli Sign Language
  6. হ্যামারস্ট্রোম, হারাল্ড; ফোরকেল, রবার্ট; হাস্পেলম্যাথ, মার্টিন, সম্পাদকগণ (২০১৭)। "Hebrewic"গ্লোটোলগ ৩.০ (ইংরেজি ভাষায়)। জেনা, জার্মানি: মানব ইতিহাস বিজ্ঞানের জন্য ম্যাক্স প্লাংক ইনস্টিটিউট।
  7. About World Languages - Hebrew

বহিঃসংযোগ

আধুনিক হিব্রু ভাষা

'আধুনিক হিব্রু ভাষা বা ইসরায়েলি হিব্রু (עברית חדשה‬, ʿivrít ḥadašá[h], [ivˈʁit χadaˈʃa] – "আধুনিক হিব্রু" বা "নতুন হিব্রু"), সাধারণত হিব্রু ভাষাভাষীদের উল্লেখ করা হয়, যা বর্তমান সময়ের কথ্য হিব্রু ভাষার স্ট্যান্ডার্ড রুপ। প্রাচীন কালের কথ্য, হিব্রু, সেমিটিক ভাষা পরিবার কনানীয় শাখার সদস্য। খ্রিস্টপূর্ব তৃতীয় শতাব্দীর শুরুর দিকে ইহুদি স্বদেশীয় ভাষা পশ্চিম আরামীয় উপভাষার স্থান দখল করেছিল। যদিও এটি একটি লিটার্জিকাল এবং সাহিত্যিক ভাষা হিসাবে ব্যবহৃত হতো। এটি ১৯শ এবং ২০শ-শতাব্দীর একটি কথ্য ভাষা হিসাবে পুনরুজ্জীবিত হয়েছিল এবং এটি ইসরায়েলের সরকারী ভাষা।

আবজাদ

আব্জাদ লিপি এমন একটি লিখন-পদ্ধতি যেখানে প্রতিটি চিহ্নই একেকটি ব্যঞ্জনবর্ণ। পাঠক নিজেই নির্দিষ্ট স্বরবর্ণের যোগান দেন। এটিকে পশ্চিম সেমেটিক লিপি পরিবারের অন্তর্ভুক্ত ধরা হয়।

আরবি ভাষা

আরবি ভাষা (العَرَبِيَّة, আল্-ʿআরবিয়্যাহ্ বা عَرَبِيّ ʻআরবিয়্য্) সেমিটীয় ভাষা পরিবারের জীবন্ত সদস্যগুলির মধ্যে বৃহত্তম। এটি একটি কেন্দ্রীয় সেমিটীয় ভাষা এবং হিব্রু ও আরামীয় ভাষার সাথে এ ভাষার ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক আছে। আধুনিক আরবিকে একটি "ম্যাক্রোভাষা" আখ্যা দেয়া হয়; এর ২৭ রকমের উপভাষা ISO 639-3-তে স্বীকৃত।

সমগ্র আরব বিশ্ব জুড়ে এই উপভাষাগুলি প্রচলিত এবং আধুনিক আদর্শ আরবি ইসলামী বিশ্বের সর্বত্র পড়া ও লেখা হয়। আধুনিক আদর্শ আরবি চিরায়ত আরবি থেকে উদ্ভূত। মধ্যযুগে আরবি গণিত, বিজ্ঞান ও দর্শনের প্রধান বাহক ভাষা ছিল। বিশ্বের বহু ভাষা আরবি থেকে শব্দ ধার করেছে।

আরামাইক লিপি

প্রাচীন আরামাইক লিপি ফিনিশীয় লিপি থেকে উৎপত্তি লাভ করে খ্রিস্টপূর্ব ৮ম শতক থেকে স্বতন্ত্র হয়ে ওঠে। তখন আরামাইক ভাষা লিখতে এটি ব্যবহৃত হয় এবং হিব্রু ভাষা লেখার জন্য ব্যবহৃত পালেও-হিব্রু লিপিকে প্রতিস্থাপিত করে এটি। সব বর্ণই ব্যঞ্জনবর্ণের প্রতিনিধিত্ব করে তবে কিছু বর্ণ দীর্ঘ স্বরবর্ণ হিসেবে ব্যবহৃত হয়।

আরামাইক বর্ণমালা ঐতিহাসিকভাবে গুরুত্বপূর্ণ। কারণ আধুনিক মধ্যপ্রাচ্যের লেখনি ব্যবস্থার মূলে রয়েছে এটি। এছাড়াও আরামাইক লিপি অনেক অ-চীনা কেন্দ্রীয় ও পূর্ব এশিয়ার লেখার ব্যবস্থাকে প্রভাবিত করেছে অথবা অভিযোজিত হয়েছে। ব্যাপক ব্যবহারের জন্য এটি লিঙ্গুয়া ফ্রাঙ্কা ও সরকারি ভাষার লিপিতে পরিণত হয় নতুন অ্যাসিরীয় সাম্রাজ্যে ও তার উত্তরাধিকারী আখমেনীয় সাম্রাজ্যে। আধুনিক হিব্রু বর্ণমালা খ্রিস্টপূর্ব ৫ম শতাব্দীর আরামাইক লিপির সাথে সম্পর্ক বহন করে আসছে। অধিকাংশ বর্ণের আকারে মিল লক্ষ্য করা করা যায়।

লিখন পদ্ধতিতে ব্যঞ্জনবর্ণ নির্দেশিত হয় কিন্তু বেশিরভাগ স্বরবর্ণ নির্দেশিত হয় না(আরামাইকের মত) অথবা তাদেরকে ডায়াক্রিটিক্যাল চিহ্ন দিয়ে নির্দেশ করা হয় যাকে পিটার টি ড্যানিয়েল 'আবজাদ' বলে অভিহিত করেন। গ্রিক বর্ণমালা স্বরবর্ণগুলোকে আরো সুশৃঙ্খলভাবে প্রতিনিধিত্ব করে যা আরামাইক করে নি।

ইসরায়েল

ইসরায়েল (হিব্রু ভাষায়: מְדִינַת יִשְׂרָאֵל‎ মেদিনাত্‌ য়িস্‌রা'এল্‌ ; আরবি: دَوْلَةْ إِسْرَائِيل‎‎ দাউলাত্‌ ইস্‌রা'ঈল্‌) পশ্চিম এশিয়া তথা মধ্যপ্রাচ্যের একটি রাষ্ট্র। এটি ভূমধ্যসাগরের দক্ষিণ-পূর্ব তীরে ও লোহিত সাগরের উত্তর তীরে অবস্থিত। দেশটির উত্তর স্থলসীমান্তে লেবানন, উত্তর-পূর্বে সিরিয়া, পূর্বে জর্দান ও ফিলিস্তিনি-অধ্যুষিত ভূখন্ড পশ্চিম তীর, পশ্চিমে ফিলিস্তিনি ভূখন্ড গাজা উপত্যকা এবং দক্ষিণ-পশ্চিমে মিশর অবস্থিত।

ইসরায়েল সমগ্র জেরুসালেম শহরকে তার রাজধানী হিসেবে দাবী করে আসছে, যদিও এই মর্যাদা সংখ্যাগরিষ্ঠ রাষ্ট্রই স্বীকার করে না। শহরের পশ্চিমভাগ ইসরায়েলের নিয়ন্ত্রণাধীন এবং এখানে দেশটির সরকারী প্রতিষ্ঠানগুলি অবস্থিত। অর্থনৈতিকভাবে ইসরায়েল একটি অত্যন্ত উন্নত শিল্পপ্রধান রাষ্ট্র। ভূমধ্যসাগরের উপকূলে অবস্থিত তেল আভিভ দেশটির অর্থনৈতিক ও প্রযুক্তিগত প্রাণকেন্দ্র এবং বৃহত্তম নগর এলাকা। স্থুল আভ্যন্তরীণ উৎপাদনের হিসেবে ইসরায়েল বিশ্বের ৩৪তম বৃহত্তম অর্থনীতি। দেশটি অর্থনৈতিক সহযোগিতা ও উন্নয়ন সংস্থার সদস্যরাষ্ট্র। বিশ্বব্যাংকের হিসাবমতে জাপান ও দক্ষিণ কোরিয়ার সাথে এটি এশিয়ার ৩টি উচ্চ-আয়ের রাষ্ট্রগুলির একটি। আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিলের মতে এটি বিশ্বের ৩৯টি অগ্রসর অর্থনীতিসমৃদ্ধ দেশগুলির একটি।

ইসরায়েলে প্রায় ৮৩ লক্ষ লোকের বাস। এটি মধ্যপ্রাচ্যের সবচেয়ে ঘনবসতিপূর্ণ দেশ; এখানে প্রতি বর্গকিলোমিটারে ৩৮১ জন অধিবাসী বাস করে। এদের মধ্যে ৬১ লক্ষ ইহুদী জাতি ও ধর্মাবলম্বী এবং ১৭ লক্ষ আরব জাতিভুক্ত (যাদের সংখ্যাগরিষ্ঠ মুসলমান)। এটিই বিশ্বের একমাত্র রাষ্ট্র যেখানে ইহুদীরা সংখ্যাগরিষ্ঠ সম্প্রদায়। ইসরায়েলের জনগণ অত্যন্ত উচ্চশিক্ষিত; এখানকার প্রায় অর্ধেক জনগণের (২৫-৬৪ বছর বয়সীদের মধ্যে) বিশ্ববিদ্যালয় বা তার সমপর্যায়ের শিক্ষাগত যোগ্যতা আছে, যা বিশ্বের ৩য় সর্বোচ্চ। দেশটির জীবনযাত্রার মান সমগ্র মধ্যপ্রাচ্যের মধ্যে সর্বোচ্চ, এশিয়াতে ৫ম এবং বিশ্বে ১৯তম।ইসরায়েল নিজেকে একটি ইহুদী গণতান্ত্রিক রাষ্ট্র হিসেবে দাবী করে। এখানে একটি প্রতিনিধিত্বমূলক সংসদীয় গণতন্ত্র বিদ্যমান। এর এককক্ষবিশিষ্ট আইনসভার নাম

ক্নে‌সেত। প্রধানমন্ত্রী সরকারপ্রধানের দায়িত্ব পালন করেন।

ইসরায়েলের জন্ম, ইতিহাস ও রাজনীতি মধ্যপ্রাচ্য সংকটের সাথে ওতপ্রোতভাবে জড়িত। স্বাধীনতা ঘোষণার পর থেকেই ইসরায়েল প্রতিবেশী আরব রাষ্ট্রগুলির সাথে বেশ কয়েকবার যুদ্ধে লিপ্ত হয়। দেশটি ১৯৬৭ সাল থেকে ফিলিস্তিনি-অধ্যুষিত পশ্চিম তীর ও গাজা উপত্যকা সামরিকভাবে দখল করে আছে। বর্তমানে পৃথিবীর ১৬১টি রাষ্ট্র ইসরায়েলকে স্বাধীন রাষ্ট্র হিসেবে স্বীকৃতি দিলেও ৩১টি রাষ্ট্র (মূলত মুসলমান অধ্যুষিত) এখনও ইসরায়েলের সার্বভৌমত্ব মেনে নেয়নি এবং দেশটির সাথে তাদের কোনও কূটনৈতিক সম্পর্ক নেই। তাদের অনেকের মতে ইসরায়েল স্বাধীন রাষ্ট্র ফিলিস্তিনের একটি অংশের অবৈধ দখলদার বাহিনীর নিয়ন্ত্রিত ভূখণ্ড। তবে নিকটতম দুই আরব প্রতিবেশী মিশর ও জর্দানের সাথে ইসরায়েল শান্তিচুক্তি স্বাক্ষর করেছে ও দেশ দুইটির স্বীকৃতিও লাভ করেছে।

ইহুদি ভাষাসমূহ

ইহুদী ভাষাসমূহ বলতে সাধারণতঃ ইস্রায়েলের বাইরে থাকা প্রবাসী ইহুদী সম্প্রদায়গুলোর জনসাধারণের দ্বারা উন্নত ভাষা ও উপভাষাগুলোকে বোঝানো হয়ে থাকে। ইহুদীদের মৌলিক ভাষা হল হিব্রু, যদিও ব্যাবিলনীয় নির্বাসনের পশ্চাৎ আরামীয় ভাষাই হয়ে দাঁড়ায় তাঁদের চলিত ভাষা। ইহুদী ভাষাসমূহে আদিম হিব্রু ও ইহুদী-আরামীয় ভাষাগুলির সাথে স্থানীয় অনিহুদী ভাষাগুলোর একটি সুমধুর সমন্বয় সর্বদা লক্ষণীয়।

ইহুদীধর্মে ঈশ্বরের নাম

ইহুদীধর্মে ঈশ্বরের নাম প্রায়শই হিব্রু বাইবেলে জিহোভা (হিব্রু: יהוה‎) হিসেবেই ব্যবহৃত। ইংরেজীতে সচরাচর এই নামকে জিহোভা অথবা ইয়েওয়েহ্‌ এবং ইহুদীয় সংস্কৃতিতে ঈশ্বরের বহুল ব্যবহৃত আরেক নাম "অ্যাডোনাই" (বা আমার প্রভু) থেকে অনুপ্রাণিত হয়ে বাইবেলের বেশির ভাগ ইংরেজী সংস্করণেই ঈশ্বরের নাম "প্রভু" হিসেবেই ব্যবহৃত।

রাবানিক ইহুদী ধর্মে বর্ণিত ঈশ্বরের সাতটি নামকে এতোটাই পবিত্র হিসেবে বর্ণিত করা হয়েছে যে, একবার সেই নামগুলো লেখা হলে না মুছার পরামhhfjjdjdj

(YHWH), এল ("ঈশ্বর"), এলোহিম ("সর্ব শক্তিমান এক ঈশ্বর"), এলোওয়াহ্‌ ("সৃষ্টিকর্তা"), এলোহাই অথবা এলোহেই ("আমার ঈশ্বর"), এল শাদাই (সর্বশক্তিমান ঈশ্বর) ও সাবিওথ (সর্ব-ক্ষমতাধর)। ঈশ্বরের বাকি নামগুলো নিছক বিশেষণ অথবা শিরোনামের বিভিন্ন দিক অনুযায়ী বিবেচিত বলে মনে করা হয়। খুমরা (বা ইহুদীয় বিধি-নিষেধ আইন) অনুযায়ী ইংরেজীতে ঈশ্বরের নাম "God" এর পরিবর্তে "G-d" (অর্থাৎ ইংরেজী বর্ণ O না লিখে O পরিবর্তে ড্যাশ) লেখার পরামর্শ দেওয়া হয়েছে যাতে করে গড নাম লিখা কোন কিছু যদি প্রিন্টও করা হয়, সেই গড লিখা প্রিন্টকৃত কাগজ যেন ভবিষ্যতে আবর্জনার স্তুপে পরিণত হয়ে ঈশ্বরের নাম অপবিত্র হয়ে না যায়, সে জন্যই এই নিষেধাজ্ঞা।ডক্যুমেন্টারি হাইপোথিসিসের বক্তব্য অনুযায়ী, টোরাহ (ইহুদীদের প্রধান ধর্মীয় গ্রন্থ) বিভিন্ন ধরনের যে উৎসগুলো থেকে সংকলিত, তাদের মধ্যে প্রধান দু'টি উলেখযোগ্য উৎস হলো জাওহিস্ট (বা ইয়াহ্‌য়িস্ট) এবং এলোহিস্ট। এই দুটি ইহুদীয় ধর্মীয়গ্রন্থের উৎসের নামকরণ করা হয়েছে মূলত উক্ত উভয় গ্রন্থে বর্ণিত ঈশ্বরের নাম "ইয়োডেহ্‌-ওয়াহে (YHWH)" এবং "এলোহিম" থেকে অনুপ্রাণীত হয়ে।

এশিয়ার ভাষা

বিশাল এশিয়া মহাদেশে বহু বিচিত্র ভাষা প্রচলিত। এগুলি বেশির ভাগই কোন বৃহত্তর ভাষা পরিবারের অন্তর্গত। তবে কিছু বিচ্ছিন্ন ভাষাও দেখতে পাওয়া যায়। ধারণা করা হয় এশিয়া মহাদেশে প্রায় ২২০০টি ভাষা প্রচলিত, যা সব মহাদেশের মধ্যে সর্বোচ্চ।

কোলেজ দ্য ফ্রঁস

কোলেজ দ্য ফ্রঁস (ফরাসি: Collège de France) ফ্রান্সের রাজধানী প্যারিসে অবস্থিত একটি উচ্চশিক্ষা ও গবেষণা প্রতিষ্ঠান। এটি প্যারিসের ৫ম আরোঁদিস্‌ম বা লাতিন পাড়ায়, সরবন বিশ্ববিদ্যালয়ের ঐতিহাসিক ক্যাম্পাসের ঠিক বিপরীতে, রু সাঁ-জাক ও রু দেজেকোলের মিলনস্থলে অবস্থিত।

প্রতিষ্ঠানটি ১৫৩০ সালে ফ্রান্সের রাজা ১ম ফ্রান্সিসের অনুরোধে প্রতিষ্ঠা করা হয়। এটিকে কোলেজ দ্য সরবন-এর একটি বিকল্প হিসেবে গড়ে তোলা হয়। এখানে হিব্রু ভাষা, প্রাচীন গ্রিক ভাষা এবং গণিত শেখানো হত। শুরুতে এটি কোলেজ রইয়াল নামে পরিচিত ছিল। পরে এর নাম হয় কোলেজ দে ত্রোয়া লঁগ, কোলেজ নাসিওনাল, কোলেজ আঁপেরিয়াল এবং সর্বশেষে ১৮৭০ সালে এর নাম হয় কোলেজ দ্য ফ্রঁস।

প্রতিষ্ঠানটির একটি অদ্বিতীয় বৈশিষ্ট্য হল এখানে যে কেউ বিনামূল্যে ক্লাস করতে পারে, যদিও কিছু উচ্চস্তরের কোর্স সাধারণ জনগণের জন্য উন্মুক্ত নয়। কোলেজ দ্য ফ্রঁসে কেবল সেইসব অধ্যাপকদের নির্বাচন করা হয়, যারা বর্তমানে তাঁদের ক্ষেত্রের শীর্ষ গবেষক বা অবদানকারী। বিজ্ঞান ও কলার বিভিন্ন ক্ষেত্র থেকে তাদের বাছাই করা হয়।

কোলেজ থেকে কোন ডিগ্রী প্রদান করা হয় না। কিন্তু এখানে বেশ কিছু গবেষণাগার এবং ইউরোপের অন্যতম সেরা গবেষণা গ্রন্থাগার অবস্থিত। গ্রন্থাগারে ইতিহাস, কলা, সামাজিক বিজ্ঞান, রসায়ন, পদার্থবিজ্ঞান, ইত্যাদির উপর বিপুল সংখ্যক দুর্লভ বই আছে।

বাইলজাবাব

বাইলজাবাব (ইংরেজি উচ্চারণ: /biːˈɛlzəˌbʌb/ (অসমর্থিত টেমপ্লেট) bee-EL-zə-BUB অথবা /ˈbɛlzəˌbʌb/ BEL-zə-BUB; (আরবি: بعل ألذباب‎‎, Ba‘al Azabab হিব্রু ভাষায়: בעל זבוב‎, Ba‘al Zəbûb, অক্ষরিকভাবে "মাছির লর্ড"; গ্রিক: βεελζεβούβ, Beelzeboub; লাতিন: Beelzebūb) মানে মাছিদের প্রভু আরবি ও হিব্রু ভাষা মতে। তবে এর আরো কিছু প্রাচীন অর্থ আছে, যেমন এটা একটি সেমেটিক দেবতা যার উপাসনা করা হত ইকরনের ফিলিস্টাইন শহরে। পরবর্তীতে বাইবেল ও খ্রিস্টান ধর্মে একে দেখা যায় দানব হিসেবে আবির্ভূত হতে। এই চরিত্রটি আবার নরকের সাতটি যুবরাজের একটি।

ব্রাহ্মসমাজ

ব্রাহ্মসমাজ বা ব্রাহ্মসভা ১৯ শতকে স্থাপিত এক সামাজিক ও ধর্মীয় আন্দোলন যা বাংলার পূনর্জাগরণের পুরোধা হিসেবে পরিচিত। কলকাতায় আগস্ট ২০, ১৮২৮ সালে হিন্দুধর্ম সংস্কারক রাজা রামমোহন রায় (১৭৭২-১৮৩৩) ও তার বন্ধুবর্গ মিলে এক সার্বজনীন উপাসনার মাধ্যমে ব্রাহ্মসমাজ শুরু করেন। তাঁদের উপাস্য ছিল "নিরাকার ব্রহ্ম", তাই থেকেই নিজেদের ধর্মের নাম রাখেন ব্রাহ্ম।

ভাষাসমূহের বর্ণানুক্রমিক তালিকা

এথ্‌নোলগ এ পর্যন্ত ৭,৩৩০টি মনুষ্য ভাষা লিপিবদ্ধ করেছে। এই নিবন্ধে প্রচলিত প্রধান মনুষ্য-ভাষাগুলির একটি বর্ণানুক্রমিক তালিকা দেয়া হল।

মধ্যপ্রাচ্য

মধ্যপ্রাচ্য হল এশিয়া ও আফ্রিকার মধ্যবর্তী একটি অঞ্চল। মধ্যপ্রাচ্যের ইতিহাস আদিকাল থেকেই প্রসিদ্ধ ছিল এবং এর ইতিহাস থেকেই এটি সারা বিশ্বের এক আলোচনার কেন্দ্রবিন্দুতে পরিনত হয়েছে। ইতিহাসের আদিকাল কাল থেকে এই অঞ্চল নানান কারণে বিখ্যাত ছিল। ধর্মীয় কারণে এই অঞ্চল যুগে যুগে বিখ্যাত ও শ্রদ্ধেয় হয়ে রয়েছে পৃথিবীর বুকে যেমন ইহুদি ধর্ম, খ্রিস্ট ধর্ম, ইসলাম ইত্যাদি ধর্মের আবির্ভাব প্রচার ও প্রসার এই অঞ্চলে হয়েছে। সাধারণত মধ্যপ্রাচ্যে শুস্ক ও গরম জলবায়ু বিদ্যমান। এর চারপাশে প্রধান কিছু নদী রয়েছে যা সীমিত এলাকায় কৃষি ব্যবস্থায় সহায়তা করে। মধ্যপ্রাচ্যের অনেক দেশ পারস্য উপসাগর তীরে অবস্থিত এবং প্রচুর অশোধিত পেট্রোলিয়াম জ্বালানী তেল সম্পদে ভরপুর। মধ্যপ্রাচ্য আধুনিক বিশ্বে অর্থনৈতিক, রাজনৈতিক, এবং সাংস্কৃতিক দিক থেকে এক গুরুত্বপূর্ণ অঞ্চলে বা জনপদে পরিণত হয়েছে।

লেওনার্ড অয়লার

লেওনার্ড অয়লার (জার্মান: 'Leonhard Euler — উচ্চারণ: লেওনাআট্‌ অয়লা'উচ্চারণ ) (আ-ধ্ব-ব: [ˈleonaɐt ˈɔʏlɐ]) (১৫ এপ্রিল, ১৭০৭, বাসেল, সুইজারল্যান্ড - ১৮ই সেপ্টেম্বর, ১৭৮৩, সাংক্‌ত্‌ পেতের্বুর্গ, রাশিয়া) একজন সুইস গণিতবিদ এবং পদার্থবিজ্ঞানী। তিনি ক্যালকুলাস, সংখ্যাতত্ত্ব, অন্তরক সমীকরণ, গ্রাফ তত্ত্ব ও টপোগণিতে অনেক গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখেন। আধুনিক গণিতে ব্যবহৃত অনেক পরিভাষা ও ধারণা তাঁর অবদান। গাণিতিক বিশ্লেষণে ব্যবহৃত গাণিতিক ফাংশন-এর ধারণা তাঁরই আবিষ্কার। অয়লার e , পাই এর জন্য π , যোগের জন্য Σ চিহ্নের প্রবর্তন করেন। তিনি বলবিজ্ঞান, আলোকবিজ্ঞান ও জ্যোতির্বিজ্ঞানেও অবদান রাখেন। সমসাময়িককালে তার মত প্রকাশনা সম্পন্ন কোনো গণিতবিদ ছিলেন না। এমনকি মুদ্রণ ব্যবস্থার উন্নতি হওয়ার পরও তার সমপরিমাণ প্রকাশনা সম্পন্ন বিজ্ঞানীর সংখ্যা খুবই কম।

অয়লারকে ১৮শ শতকের সেরা গণিতবিদ ও সর্বকালের সেরা গণিতবিদদের একজন বলে মনে করা হয়। গণিতবিদদের মধ্যে তার প্রকাশিত গবেষণা কাজের পরিমাণ আজও সর্বাধিক এবং এটি একটি গিনেস রেকর্ড। বলা হয় তার সম্পর্কে লাপ্লাস বলেছিলেন: "Lisez Euler, lisez Euler, c'est notre maître à tous" ("অয়লার পড়, অয়লার পড়, তিনি আমাদের সবার শিক্ষক।")। 2002 Euler নামের গ্রহাণুটি তাঁর সম্মানে নামকরণ করা হয়। সুইস ১০-ফ্রা এর নোট এবং সুইজারল্যান্ড, রাশিয়া ও জার্মানির অসংখ্য ডাকটিকেটে তার ছবি রয়েছে।

ল্যেভ তল্‌স্তোয়

লিও তলস্তোয় (রুশ: Лёв Николаевич Толстой লিয়েফ়্ নিকলায়েভ়িচ্ তল্‌স্তোয়; ২৮ আগস্ট ১৮২৮ – ২০ নভেম্বর ১৯১০) একজন খ্যাতিমান রুশ লেখক। তাকে রুশ সাহিত্যের অন্যতম শ্রেষ্ঠ লেখক, এমনকি বিশ্ব সাহিত্যের অন্যতম শ্রেষ্ঠ ঔপন্যাসিক হিসেবেও বিবেচনা করা হয়। তার দু’টি অনবদ্য উপন্যাস যুদ্ধ ও শান্তি (রচনাকাল ১৮৬৩–১৮৬৯) এবং আন্না কারেনিনা (রচনাকাল ১৮৭৩–১৮৭৭)। তলস্তোয়ের জন্ম রুশ সাম্রাজের তুলা প্রদেশের ইয়াস্নায়া পলিয়ানা নামক স্থানে। তিনি ছিলেন পরিবারের চতুর্থ সন্তান। শিশু বয়সে তার বাবা-মা মারা যান এবং আত্মীয়স্বজনরাই তাকে বড় করেন। তিনি উপন্যাস ছাড়াও নাটক, ছোটগল্প এবং প্রবন্ধ রচনায় ব্যাপক খ্যাতি অর্জন করেন। ১৯১০ সালের ২০ নভেম্বর রাশিয়ার আস্তাপভা নামক এক প্রত্যন্ত অঞ্চলের রেলওয়ে স্টেশনে তলস্তোয় অসুস্থ হয়ে পড়েন এবং নিউমোনিয়াতে আক্রান্ত হয়ে মারা যান। তার মৃত্যুর পর ১৯২৮ ও ১৯৫৮ সালের মধ্যবর্তী সময়ে তার সাহিত্যকর্ম ৯০ খণ্ডে বিভক্ত হয়ে তৎকালীন সোভিয়েত ইউনিয়নে প্রকাশিত হয়।

হিব্রু উইকিপিডিয়া

হিব্রু উইকিপিডিয়া (হিব্রু ভাষায়: ויקיפדיה: האנציקלופדיה החופשית‎ হচ্ছে অনলাইন বিশ্বকোষ উইকিপিডিয়ার হিব্রু ভাষার সংস্করণ। ২০০৩ সালে যাত্রা শুরু হয় এই উইকিপিডিয়ার এবং সেপ্টেম্বর ২০১৯ অনুযায়ী এই উইকিপিডিয়ায় মোট ২,৪৩,৩২০টি নিবন্ধ, ৫,২৮,০০০ জন ব্যবহারকারী, ৩৮ জন প্রশাসক ও ৫৭,৫০৬টি ফাইল আছে এবং সর্বমোট সম্পাদনা সংখ্যা ২,৫৬,৪৬,২৯৯টি।

হিব্রু লিপি

হিব্রু লিপি (אָלֶף-בֵּית עִבְרִי‬ আলেফ্‌বেত্‌ ইভ্‌রি) ২২টি বর্ণ নিয়ে গঠিত একটি লিখন পদ্ধতি যা হিব্রু ভাষা ও অন্যান্য ইহুদি ভাষাসমূহ লিখতে ব্যবহার করা হয়। এদের মধ্যে ৫টি বর্ণ শব্দের শেষ অবস্থানে ভিন্ন রূপ নেয়। হিব্রু লিপি ডান থেকে বাম দিকে লেখা হয়।

অন্যান্য ভাষাসমূহ

This page is based on a Wikipedia article written by authors (here).
Text is available under the CC BY-SA 3.0 license; additional terms may apply.
Images, videos and audio are available under their respective licenses.